ঘূর্ণিঝড়ে জন্ম নেওয়া শিশুর নাম রাখা হলো ‘আমফান’

ঘূর্ণিঝড়ে জন্ম নেওয়া শিশুর নাম রাখা হলো ‘আমফান’

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় আমফান তাণ্ডবের মধ্যে ভোলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা মনপুরায় জন্ম নেয় একটি শিশু। তাই ঘূর্ণিঝড়ের নামে ওই ছেলে শিশুটির নাম রাখা হয়েছে ‘আমফান’। বৃহস্পতিবার (২১ মে) বিকেল ৪টার দিকে মনপুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার ও নার্সদের প্রচেষ্টায় সুস্থ সবলভাবে জন্ম নেয় ওই নবজাতক। ডাক্তার ও নার্সরা খুশি হয়ে তার নাম দেন আমফান।

জানা গেছে, উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের চর যতিন গ্রামের বাসিন্দা ছালাউদ্দিন ও তার স্ত্রী সামিয়ার (২৫) প্রথম সন্তান ওই নবজাতক। ঘূর্ণিঝড়ের মধ্যে বুধবার বেশ অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন প্রসূতি মা সামিয়া। উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন হলেও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে তাকে অন্যত্র নেওয়া যাচ্ছিল না। তারপরও ডাক্তার ও নার্সদের আপ্রাণ চেষ্টায় সুস্থ অবস্থায় ওই নবজাতক পৃথিবীর আলো দেখে। খুশিতে ডাক্তার-নার্সরা ওই নবজাতকের নাম দেন আমফান। নবজাতক এবং তার মা বর্তমানে সুস্থ আছেন।

এ বিষয়ে মনপুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্যও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ তার ফেসবুক ওয়ালে লিখেন, ‘উম্পুন বা আমফান একটি থাই শব্দ যার অর্থ আকাশ। সত্যি শরতের আকাশের মতো নির্মল আনন্দের এই ছেলে সন্তানটি আমফান তীব্রতার মাঝে গতকাল ২০.৫.২০২০ বিকেল ৪টা ১০ মিনিটে আমাদের হাসপাতালে ভূমিষ্ট হয়। মা সামিয়া তার শিশু সন্তান নিয়ে আজ বাড়ি ফিরেছে। আমরা শিশুটির নাম দিয়েছি আমফান। দুর্গম মনপুরা স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য সহকারি, সি এইচ সিপি, নার্স, অফিস স্টাফসহ আমরা সব ডাক্তার গর্বিত।’