করোনাঃ কেন্দ্র হবে ৩০০টি, হাসপাতাল থেকে নিতে হবে টিকা

করোনাঃ কেন্দ্র হবে ৩০০টি, হাসপাতাল থেকে নিতে হবে টিকা

করোনা টিকার ডোজ হাসপাতালে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রাজধানীর সরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ৩০০টি টিকাদান কেন্দ্র করা হবে। এখান থেকে টিকা দেয়া হবে। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, টিকা দেয়ার পর কোনো রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে যাতে সহজেই চিকিৎসা দেয়া যাবে। সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত ‘মিট ট্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা জানান।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী আরও বলেন, আগামী ২৫ থেকে ২৬ জানুয়ারির মধ্যে দেশে সেরামের টিকা আসবে। যারা টিকা নিয়ে কাজ করছে, সবার সঙ্গে কথা বলে এটা নিয়ে আসা হচ্ছে। আশা করি সবাইকে আমরা টিকা দিতে পারবো।

টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে জাহিদ মালেক বলেন, সব ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। এ কথা সব ওষুধের গায়েই লেখা থাকে। টিকা দেয়ার পর কোনো সমস্যা হলে যেন দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া যায়, সে জন্যই হাসপাতাল বা ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে বেছে নেয়া হয়েছে টিকাদানের কেন্দ্র হিসেবে।

ফাইজার–বায়োএনটেকের তৈরি টিকা বাংলাদেশ নিতে চায় কি না, তা জানানোর শেষ দিন ছিল আজ। বাংলাদেশ এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নিয়েছে কি না, এ প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা এ বিষয়ে আগ্রহী জানিয়ে চিঠি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বরাবর দিয়েছি।

দাম নির্ধারণ করে দেয়া হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বেসরকারি পর্যায়ে টিকা আমরা সংগ্রহ ও প্রয়োগের অনুমোদন দেব। টিকার দাম কী হবে সে জন্য সরকারের নীতিমালা আছে। সে অনুয়ায়ী আমরা তাদের দাম নির্ধারণ করে দেব।

তিনি বলেন, ৪ ডলার করে সেরাম থেকে টিকা কেনা হচ্ছে। ১ ডলার আনা এবং সংরক্ষণ খরচ হবে। তবে উৎপাদন খরচ কম হলে দাম কমতে পারে। চুক্তি অনুযায়ী ভারত যদি কম দামে টিকা পায় আমরাও সেই দামে পাবো। এমনও হতে পারে সেরামের প্রথম ডোজ আসার আগেও উপহারের টিকা আসতে পারে। তবে শিগগিরই আসবে। এটি যেহেতু রাষ্ট্রীয় বিষয় তাই এখনই তারিখটা বলছি না।

ভারত কোন টিকা দেবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোন প্রতিষ্ঠানের টিকা উপহার হিসেবে দেবে আমি নিশ্চিত নই। তবে ধারণা করছি তাদের হাতে যেটা আছে সেটাই হয়তো দেবে।

সূত্র মতে, দেশে প্রথম ধাপে সেরামের ৫০ লাখ ডোজ করোনা ভ্যাকসিন আসবে। তবে প্রথম ধাপে ২৫ লাখ নয়, ৫০ লাখ ডোজই প্রয়োগ করা হবে। আগে সিদ্ধান্ত ছিল, ৫০ লাখের ২৫ লাখ দেয়া হবে। কিন্তু নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৫০ লাখই প্রয়োগ করা হবে।

এছাড়া ৬৪ জেলার মধ্য ২৮টি জেলায় ভ্যাকসিন সংরক্ষণাগার তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সাড়ে ৭ হাজার কেন্দ্র থেকে ভ্যাকসিন দেয়া হবে।

করোনাভাইরাস বিষয়ে আপডেট দেয়া ওয়ার্ল্ডোমিটার নামের ওয়েবসাইটের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী সোমবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৫৪ লাখ ৭৯ হাজার ৬২ জন, মোট মারা গেছেন ২০ লাখ ৩৯ হাজার ৬০১ জন।